‘দ্য ক্যাডার’ বইটি বিসিএস পরীক্ষার্থীদের যে ৭টি সাধারণ সমস্যার সমাধান দিচ্ছে ! bcs books

Book for BCS Exam
The Cadre: Book for BCS Exam
‘দ্য ক্যাডার’
ট্যাগ-লাইনঃ bcs books, books for bcs exam, books for bcs preliminary exam, bcs book list

[প্রথমে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ: অল্প সময়ে ‘দ্য ক্যাডার’ বইটির চতুর্থ সংস্করণ ও ৫ম মুদ্রণ প্রকাশ হওয়া, রকমারি ‘বেস্ট সেলার’ তালিকায় স্থান করে নেওয়া-বইটির এসব অর্জনের জন্য সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও পাঠককে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।]

নবীন (Beginner) বিসিএস পরীক্ষার্থীর সমস্যার ৭টি ধরন ও তার সমাধানঃ

বিয়ে করার আগে যেমন বিয়ে নিয়ে তরুন-তরুণীদের মনে অনেক শংকা ও ভুল ধারনা থাকে, নবীন বিসিএস পরীক্ষার্থীদের মনেও তেমনি থাকে বিসিএস পরীক্ষা নিয়ে অহেতুক ভয় ও ভুল ধারনা। বিসিএস পরীক্ষার ফরম পূরণ থেকে শুরু করে চূড়ান্ত নিয়োগ পাওয়া পর্যন্ত নবীন বিসিএস পরীক্ষার্থীরা অন্তত ৭ ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হয়। এ সমস্যাগুলো সঠিকভাবে মোকাবেলা করতে না পারলে বিসিএস কর্মকর্তা হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হয়না।

‘দ্য ক্যাডার:বিসিএস পরীক্ষা প্রস্তুতি কৌশল-শুরু থেকে শেষ’ বইটি নবীন বিসিএস পরীক্ষার্থীদের এই ভয় ও ভুল ধারনা দূর করে দিয়ে সমস্যাগুলো যৌক্তিকভাবে সমাধানের পথ প্রদর্শন করে।

‘দ্য ক্যাডার’ বইটি যেভাবে একজন নবীন বিসিএস পরীক্ষার্থীর ৭টি সমস্যার সমাধান দিচ্ছে:

১. বইটি বিসিএস পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতির System-Loss কমিয়ে দ্রুত ও কার্যকর প্রস্তুতি নিতে সহায়তা করছে।

পরীক্ষার প্রস্তুতিতে ও পরীক্ষার হলে ‘সময়’ খুব বড়ো একটা ডিফাইনিং ফ্যাকটর। বিখ্যাত ফরাসী সেনাপতি ‘নেপলিয়নের’ সৈন্যরা যুদ্ধক্ষেত্রে মাত্র ৪ মিনিট দেড়িতে পৌঁছানোর কারেণে ‘নেপলিয়ন’ ‘ওয়াটার-লু’ যুদ্ধে পরাজিত হয়েছিলেন।

বিসিএস পরীক্ষা এক ধরনের যুদ্ধই বটে! পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা-প্রস্তুতি বহির্ভূত নানামূখী কাজে সংশ্লিষ্ট থাকে বলে প্রস্তুতি নেওয়ার সময় কম পায়। আবার সময় বেশি থাকলেও সঠিকভাবে পড়াশোনা না করলে সিস্টেম লস হয়, পণ্ডশ্রম হয়।

তিন ঘন্টা চোখ বন্ধ করে রাখলে যেমন তিন ঘন্টা ঘুম হয়না, তেমনি তিন ঘন্টা টেবিলে বসে থাকলেও তিন ঘন্টা পড়াশোনা হয়না।
অল্প সময়ে দ্রুত প্রস্তুতি নিতে চাইলে আপনার পাঠ-পরিকল্পনাটা হতে হবে সলিড। ‘দ্য ক্যাডার’ বইটির প্রথম অধ্যায়ে ১৫টি উপায় অবলম্বন করে কীভাবে স্বল্প সময়ে কার্যকর প্রস্তুতি নেওয়া যায় সেই কৌশলগুলোর কথা লিখেছি যা বিসিএস পরীক্ষার্থীদের দারুন কাজে দিচ্ছে বলে জানতে পেরেছি।

[বি.দ্র.: চতুর্থ সংস্করণে ‘দ্য ক্যাডার’ বইটিতে ‘Data-Based Suggestions-DBS’ যুক্ত হয়েছে, যা প্রিলিমিনারি প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বাঁচিয়ে দেবে অন্তত ৪০%। বিষয়ভিত্তিক দেওয়া এই ‘DBS’ ‘দ্য ক্যাডার’ বইটির একটি ইউনিক শক্তির যায়গা যা দ্রুততর ও অধিকতর কার্যকর করবে প্রিলিমিনারি প্রস্তুতি। ]

২.  বইটিতে বিসিএস প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষার সিলেবাস, বিষয়ভিত্তিক পঠিতব্য বইয়ের তালিকা ও বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতি কৌশল দেওয়া আছে যা আমি বিভিন্ন ক্যাডারের বিভিন্ন একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ডের কর্মকর্তাদের সাথে সরাসরি আলোচনা করে, অনলাইনে-পত্রিকায় বিভিন্ন ক্যাডার কর্মকর্তার পরামর্শ এনালাইসিস করে ও নিজে দু’বার বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার অভিজ্ঞতা থেকে লিখেছি।

ফলে পরামর্শগুলো যেমন গুছানো হয়েছে, তেমনি হয়েছে দ্রুত প্রস্তুতি নেওয়ার ক্ষেত্রে সহায়ক। পরীক্ষার্থীরা অহেতুক আজেবাজে বই কেনা ও পণ্ডশ্রম দেওয়া থেকে বেঁচে যাচ্ছে। এতে বাঁচছে সময়, বাঁচছে অর্থ।

৩. বিসিএস ভাইভার ১২টি দিক নিয়ে আছে স্টেপ-বাই-স্টেপ প্র্যাক্টিক্যাল পরামর্শ যা বাজারের কোনো ভাইভা প্রস্তুতি গাইডে নেই

‘দ্য ক্যাডার’ বইয়ের ভাইভা প্রস্তুতি কৌশল অধ্যায়টিকে কয়েকজন বিসিএস কর্মকর্তা অনন্যসাধারণ বলেছেন। ভাইভার অপ্রত্যাশিত বিপর্যয় একজন বিসিএস পরীক্ষার্থীর সব পরিশ্রমকে ব্যর্থতায় পর্যবসিত করে। ‘দ্য ক্যাডার’ বইয়ের প্র্যাক্টিক্যাল টিপ্সগুলো সত্যিকার অর্থেই বিসিএস সহ যেকোনো চাকরির জন্য সহায়ক।

৪.  ‘দ্য ক্যাডার’ বইটির অধ্যায়-৫ এ দেওয়া বিসিএস স্বাস্থ্য পরীক্ষার ধরন ও প্রাক-প্রস্তুতি বিষয়ক পরামর্শগুলো পরীক্ষার্থীদের অনেক দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও ভুল ধারনা দূর করবে।
আমি অনেক পরীক্ষার্থীর ই-মেইল পেয়েছি যেখানে তারা তাদের বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার কারণে বিসিএস পরীক্ষা দেবে কিনা এই নিয়ে দোটানায় ভুগছে। উক্ত অধ্যায়টি পরীক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিয়ে অনেক অস্পষ্ট ধারনা স্পষ্ট করবে।

৫.  ‘দ্য ক্যাডার’ বইটিতে পুলিশ ও গোয়েন্দা ভেরিফিকেশন নিয়ে আছে বিস্তারিত আলোচনা।

পুলিশ ভেরিফিকেশনের সময় অনেক ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। বইটিতে দেওয়া পরামর্শগুলো পড়ে পুলিশ ভেরিফিকেশনের সময় প্রার্থী তদানুসারে সতর্ক থাকতে পারবেন।

[ ‘দ্য ক্যাডার’ বইটির Online প্রাপ্তিস্থান জানতে এখানে ক্লিক করুন>>>>…]

৬.  সঠিক ক্যাডারক্রম চয়েজ করা একটা ট্রিকি কাজ।

ক্যাডার চয়েজের সময় অনেক পরীক্ষার্থী বন্ধুবান্ধব ও অনভিজ্ঞ আত্মীয় দ্বারা প্রভাবিত হয়ে গড্ডলিকাপ্রবাহে গা ভাসিয়ে দেয়। ফলে তারা ভাসতে গিয়ে ডুবতে বসে!

‘দ্য ক্যাডার’ বইটিতে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আমি FCC (Facility-based Cadre Chart) ব্যবহার করেছি। এটা ইউনিক একটা চার্ট যা সঠিক ক্যাডারক্রমটি বেছে নিতে সহায়তা করবে। আরও আছে ইন্ডিভিজুয়্যাল ক্যাডার প্রোফাইল। যেখান থেকে জানতে পারবেন কোন ক্যাডারে কী কী সুবিধা এবং অসুবিধা আছে।

৭.  সবশেষে সঠিকভাবে বিসিএস ফরম পূরণের উপর দেওয়া আছে ২১টি প্র্যাক্টিক্যাল টিপস যা অভিজ্ঞ কর্মকর্তাদের সাথে পরামর্শ করে দেওয়া হয়েছে।
উল্টাপাল্টা তথ্য দিয়ে ফরম পূরণ করলে বিসিএস পরীক্ষায় প্রাথমিকভাবে সুপারিশ পেলেও চূড়ান্ত নিয়োগের সময় ঝামেলা পোহাতে হবে। এমনকি নিয়োগ বাতিল করে আপনার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।

অসাবধানে তথ্য দিয়ে চাকরিতে নিয়োগ পেলেও চাকরিজীবনের যেকোনো পর্যায়ে তথ্যে গড়মিল দেখা গেলে আপনাকে বরখাস্ত করে বেতনভাতা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হতে পারে। ফরম পূরণের উপর দেওয়া টিপ্সগুলো আপনাকে অসাবধনতার কারণে সৃষ্ট মহাবিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে সহায়তা করবে।

নবীন বিসিএস পরীক্ষার্থীদেরকে বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতি কৌশল, ক্যাডার চয়েজ, ফরম পূরণ, স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও পুলিশ ভেরিফেশন নিয়ে হাজারো প্রশ্নের উত্তর জানতে হয়। এই প্রশ্নগুলোর জবাব গুছিয়ে কোথাও লেখা নেই। ‘দ্য ক্যাডার’ বইটি এই অভাব পূরণ করবে।

সব প্রতিযোগিতাই দিন দিন কঠিনতর হচ্ছে, বিসিএস পরীক্ষাও তার ব্যতিক্রম নয়। বিসিএস পরীক্ষা শুধু পাশ করার পরীক্ষা নয়, অন্য প্রতিযোগীর চেয়ে এগিয়ে থাকার পরীক্ষা। ‘দ্য ক্যাডার’ বইটি পড়ুন, চাকরিপ্রাপ্তির প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকুন।

আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো।
========================

‘দ্য ক্যাডার’ বইটির প্রাপ্তিস্থান সমূহঃ
————————————-

বইটি অন-লাইনে প্রাপ্তির লিঙ্কঃ এখানে ক্লিক করুন Click here>>>

কুরিয়ারে নিতে চাইলে ফোন করুনঃ 16297 নম্বরে

তাছাড়া সারা বাংলাদেশের নিম্নোল্লিখিত বিভাগীয় ও জেলা শহরে পাওয়া যাচ্ছেঃ

** ঢাকাঃ

১. সুমনা বইঘর, বাংলাবাজার, ঢাকা।(পরিবেশক; ফোন: ০১৯২০-৪৯৪৬০৭)
২. মামুন বুক হাউজ, নীলক্ষেত, ঢাকা।
৩. তাজ বুক হাউস, নীলক্ষেত
৪. উদয়ন লাইব্রেরি, নীলক্ষেত
৫. জ্ঞানের আলো প্রকাশনী, ৩৭ বাংলাবাজার, ঢাকা।

** ফার্মগেইটঃ ১।তোফাজ্জল লাইব্রেরী, ২। দুলাল বুক
** মিরপুর-১০: এশিয়া লাইব্রেরী ; ঝর্ণা বুকস
** উত্তরাঃ এঞ্জেল লাইব্রেরী

——————
**গাজীপুরঃ আল-আমিন লাইব্রেরি(গাজীপুর বাজার); মফিজ লাইব্রেরী(চৌরাস্তা), ইউনিভার্সিটি লাইব্রেরি (ভাওয়াল কলেজ গেইট);

** রাজবারিঃ কলেজ লাইব্রেরি, কলেজ রোড।
** নরসিংদিঃ জনতা লাইব্রেরী, বুক বিলাস
** টাঙাইল(করোটিয়া): মনির লাইব্রেরী
** মাদারীপুরঃ জননী লাইব্রেরী
** ফরিদপুরঃ ** মোসলেম লাইব্রেরী
গোপালগঞ্জঃ প্রগতি লাইব্রেরী

—————————————
** চট্টগ্রামঃ
১. মাকসুদা লাইব্রেরী, ১১৬ শাহী মসজিদ, ২য় তলা, আন্দরকিল্লা, চট্টগ্রাম
২. নিউ বুক ল্যান্ড, চকবাজার, চট্টগ্রাম;
৩. এডুকেয়ার লাইব্রেরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

** কক্সবাজারঃ অন্বেষা লাইব্রেরী, রক্ষিত পুস্তকালয়, কক্সবাজার

** ফেনীঃ ১। জাহিদ প্রকাশণী, ২। শিক্ষা বিপনী, কলেজ রোড, ফেনী।

** নোয়াখালীঃ কবির বুক কর্নার, মাইজদি, নোয়াখালী

** চাঁদপুরঃ মাস্টার লাইব্রেরী, চাঁদপুর
————————————–

** সিলেটঃ

১। পপি লাইব্রেরী, রাজা ম্যানসন, জিন্দাবাজার, সিলেট। ২। সামী লাইব্রেরী, জিন্দাবাজার

**মৌলভী বাজারঃ মিতালী লাইব্রেরী

**হবিগঞ্জঃ শাহজালাল লাইব্রেরী, সুলতানিয়া লাইব্রেরী;

** ব্রাম্মনবাড়িয়াঃ ইসলামিয়া লাইব্রেরি; মদিনা লাইব্রেরি;
———————————–

** রাজশাহীঃ

১। বই বিচিত্রা ২। বইঘর (রাজশাহী সদর) ৩। তিতাস লাইব্রেরী

**পাবনাঃ লতিফ বুক হাউজ; বই বিচিত্রা, পাবনা;
—————————–

** খুলনাঃ
১। গ্র্যাজুয়েট বুক স্টল (বিএল কলেজ গেইট); ২।সোহাগ বুক ডিপো, খুলনা

** যশোরঃ রয়েল বুক ডিপো

**ঝিনাইদহঃ ইলামিয়া লাইব্রেরী, ঝিনাইদহ; ** কুষ্টিয়াঃ বই সমাবেশ
** সাতক্ষীরাঃ পপুলার লাইব্রেরী
** ঝিনাইদহঃ ইসলামিয়া লাইব্রেরী
—————————–

** রংপুর বিভাগঃ

১। মিন্টু লাইব্রেরী ২। লালবাগ বুক সেন্টার (কারমাইকেল কলেজ গেইট)
——————————–

** ময়মনসিংহ বিভাগঃ ১। আকন্দ লাইব্রেরী ২।কলেজ লাইব্রেরী ৩। সোহেল এন্টারপ্রাইজ (বাকৃবি)
——————————–
** বগুড়াঃ কাজল ব্রাদার্স
————————

****বরিশালঃ
কলেজ লাইব্রেরি।** আশ্রাফিয়া লাইব্রেরি
** পটুয়াখালীঃ স্টুডেন্ট লাইব্রেরী
————————–

** কুমিল্লাঃ
১. বিসমিল্লাহ লাইব্রেরী, কান্দিরপাড়
২. রফিক গ্রন্থাগার (নিউ মার্কেটের উল্টো পাশে), কান্দিরপাড়, কুমিল্লা।
৩. লিপিকা লাইব্রেরী, কান্দিরপাড়।
৪. ইকরা লাইব্রেরী, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা।

অন-লাইনে বইটি প্রাপ্তির লিংকঃ Click here>>>

ধন্যবাদ।

BCS Books নিয়ে লেখাটি ভালো লেগে থাকলে অনুগ্রহ করে আপনার ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করুন।

About me

Md. Zahid Hasan is a BCS Cadre officer and the founder-writer of BCSExam.com . He joined Bangladesh Civil Service in 2011 being the 27th in the merit-list under his cadre-post of 29th BCS exam. He started writing on the tricks and tips of BCS exam preparation being requested by his senior students. He is an ardent researcher and experimenter of BCS exam preparation. If you are serious about becoming a BCS cadre officer, then Read More…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *